ধর্মের ভিত্তিতে ভোট না দেবার জন্য বরাক বাসীকে অভিনন্দন,যে সরকারই ক্ষমতায় আসুক,বরাকের স্বার্থে লড়ে যাবে বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট বললেন প্রদীপ দত্তরায়।

ধর্মের ভিত্তিতে ভোট না দেবার জন্য বরাক বাসীকে অভিনন্দন,যে সরকারই ক্ষমতায় আসুক,বরাকের স্বার্থে লড়ে যাবে বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট বললেন প্রদীপ দত্তরায়।

শিলচর: গত পয়লা এপ্রিল বরাক উপত্যকায় শেষ হল ভোটদান পর্ব। দু একটি ছোটখাট ঘটনা ,যেমন সোনাই সমষ্টিতে গুলিচালনা, বিধায়ক কৃষ্ণেন্দু পালের গাড়ি থেকে ইভিএম উদ্ধার বা নেট্রিপে ভাঙচুর ছাড়া মোটামুটি শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবারের ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া। এজন্য বরাকের আপামর নাগরিককে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলেন বিডিএফ মূখ্য আহ্বায়ক প্রদীপ দত্তরায়।

এক প্রেস বার্তায় তিনি বলেন যে এবারের নির্বাচন আরেকটি শিক্ষা আমাদের দিয়ে গেল। কারণ এবার জনসাধারণ কোনো রাজনৈতিক দলের ধর্মীয় শ্লোগান বা জিগিরে প্রভাবিত হয়ে ভোট দেননি অর্থাৎ ভোটের ধর্মীয় মেরুকরণ ঘটেনি। তিনি এজন্য সবাইকে অভিনন্দন জানান এবং ভবিষ্যতেও এই ট্র্যাডিশন চালু থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন হিন্দু- মুসলমান,কিম্বা অন্যান্য ভাষিক এবং ধর্মীয় বিভাজনের জন্যই বরাক উপত্যকা আজোও এতো পিছিয়ে আছে। বরাক বাসী একবার ঐক্যবদ্ধ হলে এই উপত্যাকার উন্নয়নে কেউ বাগড়া দিতে পারতনা,পারবেও না।

প্রদীপবাবু আরো বলেন যে এবারের নির্বাচনের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো যে বরাকের বিভিন্ন জ্বলন্ত ইস্যু যেমন সিন্ডিকেট দুর্নীতি,শিলচর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দুরবস্থা, কাছাড় কাগজ কল,মহাসড়ক ইত্যাদির কথা প্রায় সমস্ত প্রার্থীদের প্রচার পর্বে উচ্চারিত হয়েছে। তিনি বলেন এটি নিঃসন্দেহে শুভ লক্ষণ,কারণ এর আগের নির্বাচন গুলিতে এসব উহ্য থাকত। তিনি বলেন যে স্বল্পসময়ের প্রতিবাদ, আন্দোলন হলেও বরাক ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট এর কর্মসূচি এই ব্যাপারে ভূমিকা রেখেছে।

বিডিএফ মূখ্য আহ্বায়ক এদিন আরো বলেন যে আগামীতে বিজেপি বা মহাজোট যারাই সরকার গঠন করুক বরাকের গুরুত্বপূর্ণ সমস্যার সমাধান, যার উদ্দেশ্যে জন্ম হয়েছিল বিডিএফ এর,তারজন্য সর্বদাই সোচ্চার থাকবে ফ্রন্ট। তিনি বলেন বরাকের কর্মপ্রার্থীদের চাকরি, সিন্ডিকেট দুর্নীতির অবসান ,কাছাড় কাগজ কল আবার চালু করা, শিলচর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উন্নয়ন,মহাসড়ক এবং মাল্টিমডেল লজিস্টিক পার্ক চালু করা,বরাকের চা শিল্পের আধুনিকিকরণ, ভাষা শহীদ স্টেশন নামকরণ,বাংলাকে সরকারি সহযোগী ভাষার স্বীকৃতি ইত্যাদি ইস্যু সমাধানের জন্য আগামী সরকারকে নির্দিষ্ট সময়সীমা ভিত্তিক কাজ শেষ করতে হবে। অন্যথায় জনগনকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাবে ফ্রন্ট এবং এক্ষেত্রে কোন আপস করবেনা ফ্রন্ট। তিনি আগামীতে এই ব্যাপারে জনগণের সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করেছেন।